সে‌মিফাইনা‌লের টি‌কিট পে‌য়ে গে‌লো নেইমাররা

IMG-20210703-WA0003.jpg

স্পোর্টস নিউজ, ডেই‌লি সুন্দরবন: কোপা আমেরিকার দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে জয় ছিনিয়ে আনলেন নেইমাররা। আজ চিলির বিরুদ্ধে ১-০ গোলে জয়লাভ করল ব্রাজিল। টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে তাঁদের পেরুর বিরুদ্ধে খেলতে হবে।
চিলির বিরুদ্ধে জয়সূচক গোল করলেন পাকুয়েতা,

আজ শুরু থেকেই জমে উঠেছিল কোপা আমেরিকার দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচ। যদিও প্রথমার্ধে ব্রাজিল কিংবা চিলি কোনও দলই গোল করতে পারেনি। তবে এই ম্যাচের আয়োজক দেশ প্রথমার্ধে যে তুলনামূলক বেশি সুযোগ তৈরি করেছিল, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। ফার্মিনহোর একটা ভলি গোলপোস্টের সামান্য বাইরে দিয়ে বেরিয়ে যায়। এরপর ড্যানিলোর একটা শটও বারপোস্টের ওপর দিয়ে উড়ে যায়। তবে হাফটাইমের ঠিক আগে দুরন্ত একটা সেভ করেন চিলির গোলরক্ষক ব্রাভো। নাহলে জেসাসের ওই শটেই নিশ্চিত গোল লেখা ছিল।

বল দখলের লড়াইয়ে ম্যাচের প্রথমার্ধে খানিকটা পিছিয়েই ছিল চিলি। ব্রাজিলের গোলরক্ষক এডারসনকে তাঁরা সেই অর্থে চাপের মুখে ফেলতে পারেননি। যদিও দুই দলের ম্যানেজারের মধ্যে একটু বেশিই খুশি হবেন লাসার্তে। কারণ ফাইনাল থার্ডে ব্রাজিল সেভাবে জ্বলে উঠতে পারছিল না। যদিও এদিক-ওদিক থেকে তারা কয়েকটা সুযোগ তৈরি করেছিল। ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে বড় ধামাকার অপেক্ষা করছিলেন তিতে।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই হল ধামাকা। ৪৬ মিনিটে দলকে ১-০ গোলে এগিয়ে দিলেন লুকাস পাকুয়েতা। আসলে চিলির রক্ষণভাগের ভুলের জন্যই এই গোলটা তাদের হজম করতে হল। মাঠের নামার এক মিনিটের মধ্যেই পাকুয়েতা স্কোর বোর্ড বদলে দিলেন। প্রথমে ফ্রেডের নিখুঁত পাস যায় নেইমারের কাছে। ব্রাজিল অধিনায়ক একটু ফ্লিক করে বলটা বাড়িয়ে দেন। ভেগাস ক্লিয়ার করতে পারেননি। লুকাস নিজের শরীরটাকে বেঁকিয়ে দুরন্ত একটা শট নিলেন। ওই জায়গা থেকে ব্রাভোর আর কিছু করার ছিল না।

তবে সাম্বা বরিগেডের আনন্দ বেশিক্ষণ দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। ৪৮ মিনিটে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হল দলের আক্রমণভাগের ফুটবলার গ্যাব্রিয়েল জেসাসকে। মেনা বলটা নিচের দিকে নামাতে চাইছিলেন। ঠিক সেইসময় গ্যাব্রিয়েল তাঁকে কড়া ট্যাকল করে ফেলেন। জেসাসের বুট সরাসরি গিয়ে লাগে চিলির ডিফেন্ডারের মুখে। রেফারি এরপর বিন্দুমাত্র দেরি করেননি। তিনি সোজা পকেট থেকে লাল কার্ডটা বের করেন। ১০ জনে লড়াই শুরু করে ব্রাজিল।

দ্বিতীয়ার্ধে চিলি বেশ কয়েকটা বিক্ষিপ্ত সুযোগ তৈরি করলেও সেভাবে দাঁত ফোটাতে পারেনি। সেকারণে গোল সংখ্যাতেও কোনও বদল হয়নি।

৬১ মিনিটে চিলি গোল পেলেও রেফারি সেটাকে নাকচ করে দেন। গোলটা অফসাইডের জন্য নাকচ করে দেওয়া হয়। চিলির ফ্রি-কিক থেকে দলের হয়ে সমতা ফিরিয়ে ছিলেন ইসলা। বলটা ধরার কোনও সুযোগ পাননি এডারসন। কিন্তু, সঙ্গে সঙ্গে লাইন্সম্যান পতাকা তুলে দেন। VAR পরীক্ষার পরও রেফারির সিদ্ধান্তে কোনও বদল হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top