যশোরে ই-পাসপোর্ট প্রিন্টিং চালু

Capture.jpg
খবর বিজ্ঞপ্তি, ডেইলি সুন্দরবন: রোববার (৩ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১১টায় যশোর আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়ে এই প্রথম ঢাকার বাইরে খুলনা বিভাগের যশোরে প্রথম ই-পাসপোর্ট পার্সোনালাইজেশনের সেল উদ্বোধন করা হয়েছে।  অনুষ্ঠানে ই-পাসপোর্ট স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সাইদুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আইয়ূব চৌধুরী।

যশোর পাসপোর্ট অফিস সূত্র জানায়, ২০২০ সালের জুন মাস নাগাদ দেশে মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের কার্যক্রম শেষ হয়েছে। এরপর দেশ ই-পাসপোর্টের যুগে প্রবেশ করেছে। বিশ্বের ১২০ দেশে বর্তমানে ইলেক্ট্রনিকস পাসপোর্টের কার্যক্রম চলমান। ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের আওতায় ২০২০ সালের ২৮ জুন যশোর অফিসে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়।

এরপর ঢাকা থেকে পাসপোর্ট ছেপে যশোরে পাঠানো হতো। যশোর অফিস সেগুলো বিলি করতো। কিন্তু এবার ঢাকা থেকে ছাপানো যুগেরও অবসান হলো।

ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আইয়ূব চৌধুরী বলেন, ঢাকার বাইরে যশোরেই প্রথম পার্সোনালাইজেশন সেলের মাধ্যমে ই-পাসপোর্ট প্রিন্টিং চালু হয়েছে। এর মাধ্যমে খুলনা, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, নড়াইল, মাগুরা, যশোর, ঝিনাইদহ, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া ও মেহেরপুর জেলার ই-পাসপোর্ট স্বল্পতম সময়ে গ্রাহকদের হাতে তুলে দেওয়া সম্ভব হবে। পাশাপাশি এটি ঢাকার পার্সোনালাইজেশন সেন্টারের ব্যাকআপ হিসেবে কাজ করবে। চূড়ান্তভাবে এর মাধ্যমে পাসপোর্ট অধিদপ্তর দৈনিক ২৫ হাজার ই-পাসপোর্ট প্রিন্টিংয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করলো।

এসময় ই-পাসপোর্ট স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনার পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুর রহমান বলেন, অতি অল্প সময়ে যাতে পাসপোর্ট পেতে পারে সে জন্য খুলনা বিভাগের ১০ জেলার মানুষের জন্য এটি স্থাপন করা হয়েছে। এখানে অতি জরুরি, জরুরি ও সাধারণ এই তিন ক্যাটাগরিতে পাসপোর্ট দেওয়া হবে। সর্বোচ্চ ২১দিন ও সর্বনিম্ন ২ দিনের মধ্যে এই পাসপোর্ট দেওয়া হবে।

ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আইয়ূব চৌধুরী বলেন, এই সেলের মাধ্যমে স্বল্প সময়ে খুলনা বিভাগের ১০ জেলার গ্রাহকদের কাছে ই-পাসপোর্ট পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে। পাশাপাশি ঢাকার পার্সোনালাইজেশনের ব্যাকআপ হিসেবে কাজ করবে। চূড়ান্তভাবে এর মাধ্যমে পাসপোর্ট অধিদপ্তর দৈনিক ২৫ হাজার ই-পাসপোর্ট প্রিন্টিংয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করলো।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান, পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার ও প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top