পাক-ভারত ম্যাচ অনিশ্চিত

download-51.jpg

খেলার খবর, ডেইলি সুন্দরবনঃ এরই মধ্যে মরুর বুকে শুরু হয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসর। প্রথম পর্ব শেষে আগামী ২৩ অক্টোবর থেকে শুরু হবে সুপার টুয়েলভের খেলা। এর একদিন পরই (২৪ অক্টোবর) বহুল প্রতীক্ষিত ম্যাচে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে ভারত-পাকিস্তান।

অরাজকতা ও দাঙ্গার আশঙ্কায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের সাথে পাকিস্তানের ম্যাচ বাতিল করার আহ্বান জানিয়েছেন ভারতীয় রাজনৈতিক নেতা কর্মীরা। এমন অবস্থায় শঙ্কা জেগেছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী এই দুই দলের ম্যাচ নিয়ে।

বিশ্বকাপের মঞ্চে এখনো পর্যন্ত ভারতকে হারাতে পারেনি পাকিস্তান। তবে এবার বিরাট কোহলিদের হারিয়েই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ মিশন শুরু করতে চায় বাবর আজমরা। পাক অধিনায়কের মতে, ২৪ অক্টোবরের মহারণে চাপে থাকবেন বিরাটরাই।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে খেলা হওয়ায় ‘ঘরের মাঠে’ খেলার সুবিধা পাবেন তারা। এমনটাই দাবি বাবরের। তিনি বলেন, ‘টিম ইন্ডিয়ার বিপক্ষে প্রতীক্ষিত এই ম্যাচটা জেতার জন্য আমরা শতভাগ দেব।’

এদিকে, দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বীর মহারণ নিয়ে দুই দলের সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটারদের কথার লড়াই তুঙ্গে। এবার ম্যাচটি নিয়ে নতুন সুর তুললেন ভারতের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরাও। তারা চাচ্ছে না, এ ম্যাচটি হোক। তাদের মতে, এ ম্যাচের মাধ্যমে বাড়তে পারে অস্থিরতা। এছাড়া দুই দেশের রাজনৈতিক সমস্যাও আরও জটিল আকার ধারণ করতে পারে।

সম্প্রতি জম্মু-কাশ্মীরে বেসামরিক নাগরিক হত্যা আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে চলছে। গত ১৫ অক্টোবর কুলগামে দুই বেসামরিক ভারতীয় নাগরিককে এলোপাতাড়ি গুলি করে হত্যা করেছে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা। গণমাধ্যমের ভাষ্যমতে, তারা জম্মু-কাশ্মীরের বাসিন্দাও ছিল না। উত্তরপ্রদেশে থাকতেন।

এসব ঘটনা মিলিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গিরিরাজ সিং দাবি তুলেছেন, ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচটি যেন পুনর্বিবেচনা করা হয়। তিনি বলেন, ‘পাক-ভারতের ম্যাচটি উচিত নতুন করে বিবেচনা করা। কারণ জম্মু-কাশ্মীরের বিষয় নিয়ে দুই দেশের মধ্যে থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে।’ এছাড়া দেশটির আরও বেশ কয়েকজন মন্ত্রী ম্যাচটি বাতিলের দাবি তুলেছেন। 

এর আগে ভারতের সঙ্গে ম্যাচটি নিয়ে পাক অধিনায়ক বাবর আজম বলেন, ‘দুই দলের ম্যাচটি নিয়ে সবার উত্তেজনা টের পাচ্ছি। আমরাও ভারতের বিপক্ষে মাঠের লড়াইয়ে নামতে মুখিয়ে আছি। আমাদের খেলোয়াড়রা এই প্রতিযোগিতায় নিজেদের মেলে ধরতে চায়। ক্রিকেটের এই সংক্ষিপ্ত সংস্করণে আবারও নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করতে চায়।’

এর আগে বাবরের মতোই পাকিস্তানকে এগিয়ে রেখেছিলেন পাক বোলার ওয়াহাব রিয়াজও। তিনি আরও বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি প্রথমবারের মতো আইসিসির কোনো বড় আসরে পাকিস্তানকে নেতৃত্ব দিচ্ছি। একজন খেলোয়াড় হিসেবে দেশের জন্য আবারও গর্ব বয়ে আনতে চাই।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top